অস্কারের ভাগ্য অনিশ্চিত

৯৩তম অস্কারের ভাগ্য অনিশ্চিত হয়ে পড়েছে। দ্য একাডেমি অব মোশন পিকচার আর্টস অ্যান্ড সায়েন্স ঠিক করেছে, অন্তত আগামী বছরের জন্য বিশ্ব চলচ্চিত্রের সবচেয়ে বড়, আলো ঝলমলে এই রাত স্থগিত হতে পারে। ভ্যারাইটি ও এবিসি এ নিয়ে বিশেষ প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে। কথা ছিল, ২০২১ সালের ২৮ ফেব্রুয়ারি সেই বড় রাত। যে রাতে জানা যাবে ২০২০ সালের পারফরম্যান্সের ভিত্তিতে কাদের হাতে উঠল বহু আকাঙ্ক্ষিত ব্রোঞ্জ আর ২৪ ক্যারেট সোনার সেই মানবট্রফি। এবার করোনার জন্য নিয়ম ভেঙে বিশেষ নিয়মও করেছিল অস্কার কমিটি। সাধারণত, অস্কারে যাওয়ার জন্য কোন সিনেমা যুক্তরাষ্ট্রের লস অ্যাঞ্জেলসের নির্দিষ্ট কিছু সিনেমা হলে অন্তত এক সপ্তাহের জন্য মুক্তি দিতে হয়। কিন্তু এই বছর এই আবশ্যিক নিয়ম শিথিল করা হয়। জানানো হয়, যে সিনেমাগুলো প্রথমিকভাবে লস অ্যাঞ্জেলসের হলগুলোতে মুক্তি দেওয়ার পরিকল্পনা ছিল, কিন্তু করোনা মহামারির কারণে সেটা সম্ভব হয়ে ওঠেনি, সেই ছবিগুলো অস্কারের মনোনয়নের জন্য গ্রহণযোগ্য হবে। অস্কার কমিটির পক্ষ থেকে এক আনুষ্ঠানিক বিবৃতিতে এর পরিচালক বলেছিলেন, ‘আমার মনে হয়, সবাই এই চলচ্চিত্র ও এর সঙ্গে সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিত্বদের প্রতি সহানুভূতিশীল হবে।  আমরা সবাই মিলে তো একটা সম্প্রদায়, একটা ইকো সিস্টেম। এই সময়ে সব হল বন্ধ। তাই অনলাইন প্ল্যাটফর্মে মুক্তি দেওয়া ছবিগুলোকেও অস্কারের মঞ্চে উদযাপন করা হবে। তবে হ্যাঁ, কেবল অনলাইন প্ল্যাটফর্মের উদ্দেশ্যেই নির্মিত, সেগুলোকে না।’ কিন্তু এবার মনে হচ্ছে, এই পরিকল্পনাও বাতিল করেছে অস্কার কর্তৃপক্ষ। এক সূত্র ভ্যারাইটিকে জানায়, বিশ্বের এমন অবস্থায় আগামী অস্কার নিয়ে ভাবাটা বোধ হয় মোটেই বুদ্ধিমানের কাজ হবে না। যদিও সিনেমা উদযাপনের সবচেয়ে বড় এই আসরকে ‘না’ করাটাও কঠিন সিদ্ধান্ত। তবুও আমরা স্থগিত করার কথাও ভাবছি। একাডেমি প্রেসিডেন্ট ডেভিড রুবিন কিছু খোলাসা করে না বললেও একই দিকে ইঙ্গিত দিয়ে এবিসি নেটওয়ার্ককে বলেন, ‘এখনো ২৮ ফেব্রুয়ারি, ২৮ ফেব্রুয়ারিতেই আছে।  তবে শিগগিরই একটা আনুষ্ঠানিক বিবৃতি আসতে যাচ্ছে। আমরা প্রতিবছরের মতো এবারও বিশ্বের সেরা চলচিত্রগুলোকে উদযাপন করতে চাই। কিন্তু সেটা কবে, কীভাবে হবে, তা আরও ভাবতে হবে।’ এমনও বলা হচ্ছে, কেবল লস অ্যাঞ্জেলসের ডলবি থিয়েটারে নয়, নিউইয়র্ক, শিকাগো, মিয়ামি, আটলান্টা ও সমুদ্র পারের নানা জায়গায় ছড়িয়ে–ছিটিয়ে অনুষ্ঠিত হবে অস্কার। তবে এখনো আনুষ্ঠানিকভাবে কোনো বিবৃতি আসেনি।