মনঃকষ্টে আছেন হানিফ সংকেত

‘ইত্যাদি’ মানেই হাজার হাজার দর্শক। ফলে করোনা পরিস্থিতিতে হয়নি ঈদের নতুন ইত্যাদির শুটিং। তবে দর্শকদের বঞ্চিত করবে না অনুষ্ঠান কর্তৃপক্ষ। মহামারির এ ঈদে ঘরবন্দী দর্শকদের জন্য ব্যতিক্রম একটি ইত্যাদি উপহার দিচ্ছেন অনুষ্ঠানটির নির্মাতা হানিফ সংকেত। সেখানে দেখা যাবে একটি মিনি সিনেমা। ইত্যাদির এটি ৩১তম বছর। বিগত দিনের বেশ কিছু অনুষ্ঠান থেকে নির্বাচিত অংশ নিয়ে এ বছরের জন্য একটি সংকলিত পর্ব নির্মিত হয়েছে। হানিফ সংকেত প্রথম আলোকে বলেন, ‘নতুন ইত্যাদি করার চেয়ে এটা ছিল কষ্টসাধ্য কাজ। আগের সাত-আটটা অনুষ্ঠান থেকে বিভিন্ন আইটেম নিয়েছি, যাতে সেগুলো সমসাময়িক থাকে। বেশি পেছনে গেলে অনেককে চেনা যাবে না। তবে শুরু ও শেষ অংশের জন্য নতুন করে শুটিং করেছি।’তিনি জানান, এ বছর ইত্যাদিতে দেখা যাবে একটি মিনি সিনেমা। দুর্যোগকালীন সময়ের গান গাইতে দেখা যাবে কুমার বিশ্বজিৎ, এন্ড্রু কিশোর, আবদুল জব্বার, সৈয়দ আবদুল হাদীর মতো শিল্পীদের। এ ছাড়া নস্টালজিক করবে মমতাজ, সুবীর নন্দী, আজম খান, খুরশীদ আলমের পরিবেশনা।দর্শকদের নতুন ইত্যাদি উপহার দিতে না পারায় মনঃকষ্টে আছেন নির্মাতা হানিফ সংকেত। তিনি বলেন, ‘আমরা পুরোপুরি প্রস্তুত ছিলাম। সাধারণত রোজার আগেই আমাদের শুটিং শেষ হয়ে যায়। বিদেশিদের অংশের প্রায় ৭০ শতাংশ শুটিং করেও ফেলেছিলাম। কিন্তু শেষটা করার আগেই তাঁরা ফিরে গেলেন। করোনায় দেশ ও বিশ্বের মতো ইত্যাদিও থমকে গেছে। কিন্তু ঈদে ইত্যাদির দর্শকদের জন্য একটা অনুষ্ঠান আমরা করেছি।’ করোনায় সচেতন করতে ইত্যাদির পক্ষ থেকে মাইকিং করা হয়েছে, যা বেশ কার্যকর হয়েছে বলে জানান হানিফ সংকেত। এ ছাড়া নিজের ফেসবুক ফ্যান পেজ থেকে দর্শকদের উদ্দীপ্ত করা, দুস্থ ব্যক্তিদের মধ্যে ত্রাণ দেওয়ার কাজও করেছেন তাঁরা। হানিফ সংকেতের রচনা, পরিচালনা ও উপস্থাপনায় ইত্যাদির এই পর্বও নির্মাণ করেছে ফাগুন অডিও ভিশন, পৃষ্ঠপোষকতা দিয়েছে কেয়া কসমেটিকস লিমিটেড। ইত্যাদি দেখা যাবে ঈদের পরদিন বিটিভি ও বিটিভি ওয়ার্ল্ডে রাত ৮টার বাংলা সংবাদের পর।