লাদাখ সীমান্তে চীনের যুদ্ধবিমানের ছবি উপগ্রহ চিত্রে

লাদাখ সীমান্ত নিয়ে ভারত ও চীনের মধ্য উত্তেজনা চলছে। সীমান্তে দুই দেশেই সেনা মোতায়েন করেছে। উপগ্রহ চিত্রের সবশেষ ছবি এই অঞ্চলের জন্য উদ্বেগের। এনডিটিভির খবরে বলা হয়েছে, লাদাখ সীমান্তের ওপারে শক্তি বাড়িয়ে চলেছে চীন। লাদাখের প্যাংগং লেক থেকে ২০০ কিলোমিটার দূরে গারি গুনশা ঘাঁটিতে অত্যাধুনিক যুদ্ধবিমান মোতায়েন করে রেখেছে চীনের 'পিপলস লিবারেশন আর্মি'। উপগ্রহ চিত্রের বরাতে এমনটা জানানো হয়েছে এনডিটিভির খবরে। স্যাটেলাইট ছবি প্রকাশ করে ভারতের গণমাধ্যমে দাবি করা হয়েছে, লাইন অব কন্ট্রোলের কাছে মোতায়েন বিমানগুলোর মধ্যে অন্যতম হলো J-11 এবং J-16 ফাইটার। ৬ এপ্রিলের স্যাটেলাইটের তোলা ছবিতে দেখা যাচ্ছে, অসামরিক বিমানঘাঁটি রূপেও ব্যবহার হওয়া গারি গুনশায় কোনো যুদ্ধযান বা সমরসজ্জা নেই। কিন্তু ২১ মের ছবি সম্পূর্ণ অন্য কিছু ইশারা করছে। এই সময়ের মধ্যেই গারি গুনশায় ছবিটি সত্য হলে ভারতের জন্য উদ্বেগের। আর ভারত-চীন সীমান্তে উত্তেজনার মধ্যে চীনা প্রেসিডেন্ট সি চিন পিং যুদ্ধের প্রস্তুতি রাখতে সেনাকে নির্দেশ দেওয়ার পরই এ ঘটনা বলে মনে করা হচ্ছে। অনেকের দাবি, করোনা আবহে মহামারি থেকে নজর ঘোরাতে এবং হংকংয়ে চলা বিক্ষোভে দৃষ্টি ফেরাতে সীমান্তে উত্তেজনা বাড়াচ্ছে চীন। গারি গুনশা ঘাঁটি বিশ্বের উচ্চতম বিমানঘাঁটিগুলোর মধ্যে অন্যতম। সমুদ্রপৃষ্ঠ থেকে গারি গুনশার উচ্চতা ৪ হাজার ২৭৪ মিটার। চীনের যে যুদ্ধবিমানগুলোর ছবি দেখা যাচ্ছে, তা সীমিত পরিমাণের ক্ষেপণাস্ত্র ও বোমা নিয়ে উড়তে পারবে। খুব বেশি হলে ঘণ্টাখানেক বাতাসে থাকতে পারবে যুদ্ধবিমানগুলো।