সালমানের জন্যই শেষ সুর বেঁধেছিলেন ওয়াজিদ

প্রথমে ইরফান খান, তারপর ঋষি কাপুর। একের পর এক নক্ষত্রপতন ঘটেছে বলিউড। সোমবার আবারও শোকস্তব্ধ বলিউড। রোববার দিবাগত রাতে মারা গেলেন সংগীত পরিচালক ওয়াজিদ খান। বয়স হয়েছিল ৪২ বছর। মুম্বাইয়ের এক বেসরকারি হাসপাতালে মারা যান তিনি। তবলাবাদক ওস্তাদ সারফত আলী খানের ছেলে ওয়াজিদ। ভাই সাজিদের সঙ্গে জুটি বেঁধে গত ২০ বছর ধরে বলিউড কাঁপিয়েছেন তিনি। হাসিখুশি, প্রাণবন্ত এই সংগীত পরিচালকের সঙ্গে বলিউডের অনেকেরই আত্মিক সম্পর্ক ছিল। তবে এঁদের সবার মধ্যে বলিউড সুপারস্টার সালমান খানের সঙ্গে তাঁর বিশেষ সম্পর্ক ছিল। এমনকি ওয়াজিদ তাঁর জীবনের শেষ কাজ সালমানের সঙ্গে করেছিলেন। তাঁর মৃত্যুতে রীতিমতো ভেঙে পড়েছেন সালমান। সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ভারাক্রান্ত হৃদয়ে এই বলিউড নায়ক ওয়াজিদের প্রতি শোকবার্তা দেন। বলিউডের সংগীত দুনিয়ার দুই ভাই সাজিদ-ওয়াজিদ জুটি সৃষ্টি করেছেন একাধিক অমর সুর। এই জনপ্রিয় জুটি আজ বাঁধনহারা। কিছুদিন আগে ঈদের দিন তাঁরা একত্রে উপহার দেন 'ভাই ভাই' গানটি। সালমান খানের এই গানে ওয়াজিদ সাজিদের সঙ্গে সুর দেন। শুধু তা–ই নয়, এই লকডাউনের সময়ে সালমানের জন্য নতুন সুর বেঁধেছিলেন ওয়াজিদ। সালমান খান কোভিড–১৯ এর ওপর 'প্যায়ার করোনা' গানটি গেয়েছিলেন। এই গানে ওয়াজিদ সুর দিয়েছিলেন। ২০ এপ্রিল ভাইজানের গানটি তাঁর ইউটিউব চ্যানেলে রিলিজ হয়েছিল। সালমানের সঙ্গে জীবনের শেষ সুরটি ওয়াজিদ বেঁধেছিলেন। আবার এই সুপারস্টারের সঙ্গেই তিনি তাঁর সংগীত সফর শুরু করেছিলেন। ওয়াজিদ তাঁর বলিউডি ক্যারিয়ার শুরু করেন ১৯৯৮ সালে, ভাইজানের সঙ্গে। সোহেল খান পরিচালিত 'প্যায়ার কিয়া তো ডরনা ক্যায়া' ছবিতে সংগীত পরিচালনা করে অভিষেক হয় সাজিদ-ওয়াজিদ জুটির। এই ছবির নায়ক ছিলেন সালমান খান। আর নায়িকা ছিলেন কাজল। সালমানের একাধিক ছবিতে সুপারহিট গান উপহার দিয়েছেন এই জনপ্রিয় সংগীত পরিচালক। ওয়াজিদ সালমানকে তাঁর গডফাদার হিসেবে মানতেন। সব সময় মুক্ত কণ্ঠে সালমানের প্রশংসা করতেন তিনি। ওয়াজিদ সালমানের 'দাবাং', 'বীর', 'ওয়ান্টেড', 'নো প্রবলেম', 'গড তুসি গ্রেট হো', 'পার্টনার'সহ আরও ছবিতে গানও গেয়েছেন। সাজিদ-ওয়াজিদের জুটি 'এক থা টাইগার', 'দাবাং', 'দাবাং টু', 'দাবাং থ্রি', 'রাউডি রাঠোর', 'পার্টনার', 'সন অব সরদার', 'হাউসফুল টু'র মতো ছবিগুলো গান দিয়ে সাজিয়ে তুলেছেন। সালমানের অত্যন্ত প্রিয় বিটাউনের এই মানিকজোড়। তাই তিনি তাঁর একাধিক ছবির সংগীতের দায়িত্ব সাজিদ-ওয়াজিদের ওপর তুলে দিয়েছিলেন। সালমানের সঙ্গে কাজ করাকে ওয়াজিদ এক শিক্ষণীয় সফর বলে মনে করতেন। সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে সালমান ওয়াজিদের উদ্দেশে বলেন, 'ওয়াজিদকে আমি সারা জীবন ভালোবাসব, এবং সম্মান করব। একজন ব্যক্তি এবং প্রতিভাবান হিসেবে সর্বদা তোমার অভাব অনুভব করব। আর তোমাকে স্মরণ করব। ভালোবাসা নিয়ো। তোমার আত্মার চিরশান্তি কামনা করি।' শোক প্রকাশ করেছেন প্রিয়াঙ্কা চোপড়াও। লিখেছেন, 'ওয়াজিদ ভাই, তোমার ওই হাসিটা খুব মিস করব। বড্ড তাড়া ছিল তোমার।' চার মাস আগে ওয়াজিদের কিডনি প্রতিস্থাপন করা হয়েছিল। এই জনপ্রিয় সংগীত পরিচালকের হার্টজনিত সমস্যাও ছিল। আর সেই কারণে তাঁকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। চিকিৎসাকালীন ওয়াজিদের শরীরে করোনা সংক্রমণ ধরা পড়ে।