ঠাকুরগাঁওয়ে কোভিড আক্রান্ত ব্যবসায়ীর মৃত্যু

 করোনাভাইরাসের সংক্রমণে ঠাকুরগাঁওয়ে এক চাল ব্যবসায়ীর মৃত্যু হয়েছে। আজ মঙ্গলবার সন্ধ্যায় রংপুর মেডিকেল কলেজে নিয়ে যাওয়ার পথে তিনি মারা যান। পরে তাঁকে দিনাজপুরের বীরগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাঁকে মৃত ঘোষণা করেন।  মারা যাওয়া ব্যবসায়ী ঠাকুরগাঁও পৌর এলাকার বাসিন্দা।  এ নিয়ে জেলায় দুজন করোনাভাইরাসের সংক্রমণে মারা গেলেন।  মারা যাওয়া ব্যক্তির ছোট ভাই জানান, কয়েক দিন ধরে তাঁর ভাইয়ের জ্বর ও শ্বাসকষ্ট বেড়ে যায়। করোনা সন্দেহ হলে আধুনিক সদর হাসপাতালের নমুনা সংগ্রহকারীরা তাঁরসহ পরিবারের আরও তিন সদস্যের নমুনা সংগ্রহ করে দিনাজপুরের এম আবদুর রহিম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পিসিআর ল্যাবে পাঠায়। গতকাল চারজনেরই নমুনা পরীক্ষায় করোনা ধরা পড়ে। আজ দুপুর ১২টার দিকে তাঁর শারীরিক অবস্থার অবনতি হতে থাকে। এরপর স্বজনেরা বিকেলে তাঁকে রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেওয়ার জন্য রওনা হন। পথে অবস্থার আরও অবনতি হলে তাঁরা রওশন আলীকে দিনাজপুরের বীরগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে যান।  সেখানে সন্ধ্যা ছয়টার দিকে তাঁর মৃত্যু হয়।  দিনাজপুরের বীরগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের চিকিৎসক তারেক আজিজ প্রথম আলোকে  বলেন, পথেই ওই ব্যক্তির মৃত্যু হয়েছে।  জেলা সিভিল সার্জন মাহফুজার রহমান সরকার জানান, জেলায় গতকাল রাত পর্যন্ত ১২২ জনের করোনাভাইরাস শনাক্ত হয়েছে। এঁদের মধ্যে মারা গেছেন দুজন। আর ২৭ জন সুস্থ হয়ে ছাড়পত্র পেয়েছেন।  করোনা উপসর্গ নিয়ে গত ২৪ মে রানীশংকৈল উপজেলায় ঢাকাফেরত একজন বৃদ্ধ নারী মারা যান। তাঁর লাশ থেকে নমুনা সংগ্রহ করে ঢাকার ন্যাশনাল ইনস্টিটিউট অব ল্যাবরেটরি মেডিসিন অ্যান্ড রেফারেল সেন্টারে পাঠানো হয়। সেই নমুনা পরীক্ষার ফলাফল পজিটিভ আসে।