বগুড়ায় করোনা শনাক্তের সংখ্যা ৪৪৯

  বগুড়ায় এক দিনে সর্বোচ্চ ৫৭ জনের করোনাভাইরাস শনাক্তের রেকর্ড হয়েছে। এ নিয়ে  করোনা শনাক্ত হওয়া ব্যক্তির সংখ্যা ৪৪৯ জনে দাঁড়াল। গত ২৪ ঘণ্টায় নতুন করে সংক্রমিত ব্যক্তির মধ্যে ১৫ জন পুলিশ সদস্য এবং একজন আইনজীবী রয়েছেন। বগুড়ার ডেপুটি সিভিল সার্জন মোস্তাফিজুর রহমান আজ মঙ্গলবার রাতে এসব তথ্য নিশ্চিত করেন। তিনি জানান, শহীদ জিয়াউর রহমান মেডিকেল কলেজ ল্যাবরেটরিতে ১৮৮টি নমুনা পরীক্ষা করা হয়। এর মধ্যে বগুড়ার ১৭৬টি নমুনার মধ্যে ৪৭ জনের করোনা পজিটিভ আসে। আর জয়পুরহাটে ১২টি নমুনাই নেগেটিভ আসে।   অন্যদিকে টিএমএসএস মেডিকেল কলেজে ১৯টি নমুনা পরীক্ষা করা হয়। এতে বগুড়ার ১০ জনের ও গাইবান্ধার একজনের করোনা পজিটিভ শনাক্ত হয়।  সরকারি-বেসরকারি দুই মেডিকেল কলেজের ল্যাবরেটরিতে নতুন করে শনাক্ত ৫৭ জনের মধ্যে বগুড়া শহরের ৪৩ জন, শেরপুর উপজেলার ৫, গাবতলী উপজেলায় ৩, ধুনট উপজেলায় ২ এবং শাজাহানপুর, আদমদীঘি, সারিয়াকান্দি ও কাহালু উপজেলার একজন করে আছেন। শহরের ৪৩ জনের মধ্যে সর্বোচ্চ চেলোপাড়া ও নাটাইপাড়া এলাকার বাসিন্দা রয়েছেন। ডেপুটি সিভিল সার্জন মোস্তাফিজুর রহমান বলেন, এ পর্যন্ত জেলায় ৭ হাজার ২২৬টি নমুনা সংগ্রহ করা হয়েছে। এর মধ্যে ৫ হাজার ৫৬৪টি নমুনার ফল পাওয়া গেছে। করোনা পজিটিভ শনাক্ত হয়েছে ৪৪৯ জনের। এর মধ্যে ৪৪ জন পুলিশ, ১৩ জন কারারক্ষী এবং ২৬ জন চিকিৎসক ও স্বাস্থ্যকর্মী আছেন। শনাক্ত হওয়া ব্যক্তিদের সিংহভাগই আক্রান্তদের সংস্পর্শে এসে সংক্রমিত হয়েছেন। বাকিরা ঢাকাসহ বিভিন্ন জেলা থেকে বগুড়ায় ফেরা। আক্রান্তদের মধ্যে ৩৪৮ জন পুরুষ, ৮২ জন নারী এবং ১৯ জন শিশু রয়েছে। ১৮ থেকে ৫০ বছর বয়সী সর্বোচ্চ ৩৭১ জন কোভিডে আক্রান্ত হয়েছেন।  স্বাস্থ্য বিভাগের তথ্য অনুযায়ী, জেলার মধ্যে বগুড়া শহরে সর্বোচ্চ ২৬২ জনের করোনা শনাক্ত হয়েছে। অন্য উপজেলার মধ্যে শাজাহানপুরে ৩২ জন, গাবতলীতে ৩০ জন, কাহালুতে ১৬ জন, শেরপুরে ২৮ জন, শিবগঞ্জে ৯ জন, আদমদীঘিতে ১২ জন, সারিয়াকান্দিতে ২২ জন, সোনাতলায় ১১ জন, দুপচাঁচিয়ায় ৯ জন, ধুনটে ১১ জন এবং নন্দীগ্রাম উপজেলায় ৮ জন আছেন।