‘প্রশাসনের লোক’ পরিচয়ে তুলে নেওয়ার অভিযোগ

ছালেউর রহমান (৩০) ও দেলোয়ার হোসেন (৩৫) ঢাকার সবুজবাগ এলাকায় রিকশা চালাতেন। ওই এলাকায় দুজন একই বাসায় একসঙ্গে থাকতেন। দুজনের একজন এক রাতে স্ত্রীকে মুঠোফোনে জানান, বাসায় প্রশাসনের লোকজন এসেছেন। এরপর সাত মাস ধরে দুজনের কোনো খোঁজ পাওয়া যাচ্ছে না। আজ মঙ্গলবার ঠাকুরগাঁও প্রেসক্লাবে সংবাদ সম্মেলন করেন ছালেউরের বাবা আজিজুর রহমান ও দেলোয়ার হোসেনের স্ত্রী শিরিনা বেগম। তাঁরা অভিযোগ করেন, প্রশাসনের লোক পরিচয়ে ওই দুজনকে গত ৫ জানুয়ারি অপহরণ করা হয়েছে। ছালেউর রহমানের বাড়ি ঠাকুরগাঁও জেলার পীরগঞ্জ উপজেলার কোটাপাড়া গ্রামে। আর দেলোয়ার হোসেনের বাড়ি দিনাজপুরের বীরগঞ্জ উপজেলার প্রাণনগর গ্রামে। তাঁরা ঢাকার সবুজবাগ এলাকায় রিকশা চালাতেন। দেলোয়ারের স্ত্রী শিরিনা বেগম বলেন, গত ৫ জানুয়ারি রাতে দেলোয়ার তাঁকে মুঠোফোনে জানান, তাঁদের বাসায় প্রশাসনের লোকজন এসেছেন, দরজা খোলার জন্য চাপ দিচ্ছেন। এরপরই মুঠোফোনটি বন্ধ হয়ে যায়। এ ঘটনার পর থেকে নিখোঁজ দেলোয়ার ও ছালেউর। নিখোঁজের পর দেলোয়ার ও ছালেউরের পরিবারের লোকজন ঢাকায় গিয়ে প্রথমে রিকশার গ্যারেজ ও আশপাশের এলাকায় খোঁজখবর নেন। পরে তাঁরা গোয়েন্দা সংস্থার দপ্তর, থানা, হাসপাতাল, কারাগার ও মর্গে খোঁজ নিতে শুরু করেন। খোঁজ না পেয়ে ঘটনার এক মাস পর ৬ ফেব্রুয়ারি দেলোয়ারের স্ত্রী শিরিনা বেগম সবুজবাগ থানায় ও ছালেউরের বাবা আজিজুর রহমান ৯ ফেব্রুয়ারি খিলগাঁও থানায় সাধারণ ডায়েরি (জিডি) করেন। তবে এত দিন ধরে পুলিশ ও বিভিন্ন গোয়েন্দা সংস্থার দপ্তরে গিয়েও তাঁরা কিছু জানতে পারেননি।তাই সংবাদ সম্মেলন করে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার হস্তক্ষেপ কামনা করছেন তাঁরা। দেলোয়ারের স্ত্রী ও ছালেউরের বাবা বলেন, দেলোয়ার ও ছালেউর কোনো রাজনৈতিক দলের সঙ্গে যুক্ত ছিলেন না। এলাকায় তাঁদের কোনো শত্রু নেই।