সোহরাওয়ার্দীতে পরিচালকের কক্ষ ঘেরাও চিকিৎসকদের

এই দাবিতে শনিবার হাসপাতালের পরিচালক অধ্যাপক ডা. উত্তম কুমার বড়ুয়া, উপ-পরিচালক ডা. মামুন মোর্শেদ ও মেডিকেল কলেজের উপাধ্যক্ষ ও কোভিড ইউনিটের সমন্বয়ক অধ্যাপক ডা. শাহাদাৎ হোসেন রিপনের কক্ষ ঘেরাও করে বিক্ষোভ দেখিয়েছেন তারা।

হাসপাতালের পরিচালক অধ্যাপক ডা. উত্তম কুমার বড়ুয়া বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, কোভিড ইউনিটে দায়িত্ব পালনকারী চিকিৎসকদের একটি আবাসিক হোটেলে থাকার ব্যবস্থা করা হয়েছিল। কিন্তু নতুন নিয়ম অনুযায়ী সরকার চিকিৎসকদের কোয়ারেন্টিন সুবিধা বাতিল করেছে। তাদের আবাসনের ব্যবস্থা নিজেদের করে নিতে বলা হয়েছে।

“আগে যেমন আবাসনের সুযোগ ছিল। এখন নুতন পরিপত্রে এ ধরনের সুযোগ নেই। আমরা তাদের আজকে থেকে হোটেল ছেড়ে দিতে বলেছি। এজন্য তারা অসন্তোষ জানিয়েছেন। বিষয়টি আমি স্বাস্থ্য অধিদপ্তরে জানিয়েছি। সেখান থেকে এখন পর্যন্ত কিছু বলা হয়নি।”

সোহরাওয়ার্দী মেডিকেলের কোভিড ইউনিটে শতাধিক চিকিৎসাকর্মী পালাক্রমে কাজ করছেন বলে উত্তম বড়ুয়া জানান।

নতুন করোনাভাইরাস অত্যন্ত ছোঁয়াচে বলে রোগীদের চিকিৎসায় নিয়োজিত স্বাস্থ্যকর্মীদের ঝুঁকি থাকে সবচেয়ে বেশি। কাজ শেষে বাড়ি ফিরলে তাদের মাধ্যমে পরিবারেও এ ভাইরাস ছড়ানোর ঝুঁকি থাকে।

সে কারণে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার প্রটোকল অনুযায়ী, হাসপাতালে কোভিড-১৯ রোগীদের চিকিৎসায় নিয়োজিতদের একটি নির্দিষ্ট সময় কাজ করার পর নির্দিষ্ট সময় কোয়ারেন্টিনে থাকার কথা।

সে কারণে দেশে করোনাভাইরাসের প্রাদুর্ভাব শুরুর পর গত ১২ এপ্রিল রাজধানীর ছয়টি সরকারি হাসপাতালের স্বাস্থ্যকর্মীদের থাকার জন্য ১৯টি হোটেল নির্ধারণ করে দিয়েছিল সরকার। 

কিন্তু গত ২৯ জুলাই স্বাস্থ্য ও পরিবারকল্যাণ মন্ত্রণালয় সিদ্ধান্ত নেয়, স্বাস্থ্যকর্মীদের জন্য নির্ধারিত আবাসিক হোটেলের বিল আর পরিশোধ করা হবে না। চিকিৎসকদের জন্য বরাদ্দ হোটেলের সুবিধাও বাতিল করা হয়।

তবে ঢাকায় দায়িত্ব পালনকারী চিকিৎসকরা দৈনিক দুই হাজার টাকা, নার্সরা ১ হাজার ২০০ টাকা এবং অন্যান্য স্বাস্থ্যকর্মীরা ৮০০ টাকা করে ভাতা পাবেন বলে জানানো হয় ওই পরিপত্রে।