এক বিন্দুতে মিলে গেলেন দুই ‘শত্রু’

করোনাভাইরাসে আক্রান্ত ব্যক্তিদের পাশে দাঁড়ালেন দুই প্রতিদ্বন্দ্বী কোচ—পেপ গার্দিওলা ও হোসে মরিনহো মরিনহো-গার্দিওলার ‘শত্রুতা’ আজকের না। সেই ২০০৯ চ্যাম্পিয়নস লিগে গার্দিওলার অপ্রতিরোধ্য বার্সেলোনাকে থামিয়ে দেয় মরিনহোর নাছোড় ইন্টার। এরপর রিয়াল মাদ্রিদে গিয়ে গার্দিওলার সঙ্গে শত্রুতার বিষয়টাকে আরেকটু ‘সরাসরি’ করে ফেলেন এই পর্তুগিজ কোচ। গত কয়েক বছরে এই দুই কোচ যে কতবার একে অন্যের উদ্দেশে তোপ দাগিয়েছেন, তার ইয়ত্তা নেই। ফুটবলীয় দর্শনের দিক দিয়েও দুজনের অহিনকুল সম্পর্ক। গার্দিওলা যেখানে গুরু ইয়োহান ক্রুইফের মতো তথাকথিত সুন্দর ফুটবলের পূজারি, মরিনহোর কাছে দিন শেষে সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ ম্যাচের ফলাফল। কিন্তু এক করোনাভাইরাস এই দুই বিপরীতধর্মী কোচকে এনে দিল একই কাতারে। দুজনই করোনায় আক্রান্ত রোগীদের পাশে এসে দাঁড়িয়েছেন। নিজের দেশ স্পেনে করোনাভাইরাসের প্রকোপ যেন বৃদ্ধি না পায়, সে জন্য একাই প্রায় সাড়ে নয় কোটি টাকা দান করেছেন ম্যানচেস্টার সিটির কোচ পেপ গার্দিওলা। অর্থাৎ এক মিলিয়ন ইউরো। বার্সেলোনার অধিবাসী এই কোচ বেশ কয়েক দিন ধরে নিজের আইনজীবীদের সঙ্গে আলোচনা করছিলেন, কীভাবে এই টাকার সদ্ব্যবহার করা যায় সেটা নিয়ে। পরে সিদ্ধান্ত হয়েছে, করোনা-প্রতিরোধে বার্সেলোনার মেডিকেল কলেজ ও অ্যানহেল সোলার দানিয়েল ফাউন্ডেশন কর্তৃক চলতে থাকা ক্যাম্পেইনে এই টাকা দান করা হবে। স্পেনের যেসব অঞ্চলে করোনা বেশি আঘাত হেনেছে, তার মধ্যে গার্দিওলার কাতালান রাজ্য অন্যতম। মাস্ক, মেডিকেল গাউন সহ অন্যান্য প্রয়োজনীয় যন্ত্রপাতি কেনার কাজে ব্যয় করা হবে গার্দিওলার অর্থ।ওদিকে এখন উত্তর লন্ডনের ক্লাব টটেনহাম হটস্পারের দায়িত্বে থাকা কোচ হোসে মরিনহো করোনাভাইরাস সংকটে ওই এলাকায় ঘরে আটকে থাকা প্রবীণ বাসিন্দাদের সহায়তায় স্বেচ্ছাসেবী হিসেবে কাজ করছেন। টটেনহামের অনুশীলন মাঠের কাছে ‘এজ ইউকে’ ও ‘লাভ ইয়োর ডোরস্টেপ’ নামে দুটি স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন এলাকার প্রবীণ বাসিন্দাদের সহায়তার জন্য কাজ করছে। তাদের হয়ে খাবার পার্সেল ও অন্যান্য প্রয়োজনীয় রসদ প্রস্তুতের কাজে সহায়তা করেন ইন্টার ও পোর্তোর হয়ে দুবার চ্যাম্পিয়নস লিগ জেতা এই কোচ। রিয়াল মাদ্রিদের সাবেক এই কোচকে ধন্যবাদ জানিয়ে সোমবার নিজেদের টুইটার পেজে একটি ভিডিও পোস্ট করে ‘লাভ ইয়োর ডোরস্টেপ’ সংগঠনটি। স্বেচ্ছাসেবী হিসেবে এগিয়ে আসার কারণ জানান মরিনহো, ‘আমি এখানে এসেছি এজ ইউকে অ্যানফিল্ড ও লাভ ইয়োর ডোরস্টেপ অ্যানফিল্ডকে সাহায্য করতে। অবশ্যই আপনিও খাদ্য, অর্থ দিয়ে অথবা স্বেচ্ছাসেবী হয়ে সহায়তা করতে পারেন।’ নিজেদের অস্তিত্ব রক্ষার জন্য শত্রুরাও যে একযোগে কাজ করতে পারে, এটাই হয়তো তার সবচেয়ে বড় উদাহরণ!