ইউরোপে গ্যাস–সংকট, অভিযোগ রাশিয়ার দিকে

ইউরোপজুড়ে গ্যাসের দাম বাড়ছে হু হু করে। চলতি বছরের জানুয়ারি থেকে বাসাবাড়িতে ব্যবহৃত গ্যাসের দাম পাইকারিতেই বেড়েছে ২৫০ শতাংশ। অভিযোগ উঠেছে, রাশিয়া ইচ্ছাকৃতভাবে গ্যাস সরবরাহে লাগাম টেনে রাখায় এ সংকট তৈরি হয়েছে। তবে ক্রেমলিন অভিযোগ অস্বীকার করে বলেছে, তারা গ্যাসকে ‘রাজনৈতিক হাতিয়ার’ হিসেবে ব্যবহার করছে না।

ইউরোপের অন্যতম বড় গ্যাস সরবরাহকারী দেশ রাশিয়া। দেশটির প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন বুধবার বলেছেন, ইউরোপে গ্যাস সরবরাহে লাগাম টেনে রাখার অভিযোগ ‘একেবারেই ফালতু...রাজনৈতিক বাহাস মাত্র।’ তিনি বলেন, চুক্তি অনুযায়ী রুশ গ্যাস কোম্পানি গাজপ্রমের যে পরিমাণ গ্যাস সরবরাহ করার কথা, সেই পরিমাণই ইউরোপে সরবরাহ করছে। তারা অনুরোধ করলে আরও বেশি গ্যাস সরবরাহ করা হবে।

তিনি উল্টো অভিযোগ করে বলেন, শীতের পর গ্যাসের মজুত ঠিক রাখার জন্য যথাযথ পদক্ষেপ নেয়নি তারা। ইউরোপের গ্যাসের বাজার অস্থিতিশীল হওয়া প্রসঙ্গে পুতিন বলেন, ‘বাজার স্থিতিশীল রাখতে দীর্ঘমেয়াদি কৌশল প্রণয়ন খুবই গুরুত্বপূর্ণ।’

এদিকে ইউরোপীয় কমিশন (ইইউ) জানিয়েছে, সদস্যদেশগুলোকে এ সংকট থেকে উত্তরণে কী কী পদক্ষেপ নেওয়া যায়, তা খতিয়ে দেখা হচ্ছে।

বলা হচ্ছে করোনার স্থবিরতা কাটিয়ে উঠছে ইউরোপের অর্থনীতি। ফলে গ্যাসের চাহিদা বেড়েছে। এ ছাড়া অন্যান্য কারণেও গ্যাসের দামে নতুন রেকর্ড হয়েছে।