কোভিড ঝুঁকির মধ্যে শুরু ইউপি ভোট

এদিন প্রথম ধাপে ২০৪ ইউনিয়ন পরিষদের (ইউপি) পাশাপাশি দুই পৌরসভার ভোটও হচ্ছে।

যথারীতি সকাল আটটায় শুরু হয়েছে ভোটগ্রহণ; চলবে একটানা বিকাল চারটা পর্যন্ত।

এর মধ্যে সংসদীয় আসনের উপনির্বাচন এবং দুটি পৌরসভা ও ২০ ইউপিতে ইভিএমে ভোট হবে।

দলীয় প্রতীকের এই নির্বাচনে আওয়ামী লীগ, জাতীয় পার্টি, ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশসহ কয়েকটি দল অংশ নিচ্ছে।

বিএনপি অংশ না নেওয়ায় দলটির যারা প্রার্থী হয়েছেন তারা ভোটে লড়ছেন স্বতন্ত্র হিসেবে।

অন্যদিকে কুয়েতে কারাদণ্ড পাওয়া কাজী শহীদ ইসলাম পাপুলের সংসদ সদস্য পদ শূন্য ঘোষণা করা হলে লক্ষ্মীপুর-২ আসনে উপনির্বাচন অনুষ্ঠিত হচ্ছে।

এই আসনে আওয়ামী লীগের নুর উদ্দিন চৌধুরী নয়ন এবং জাতীয় পার্টির শেখ মোহা. ফায়িজ উল্যাহ শিপন প্রতিদ্বন্দ্বীতা করছেন।

দেশের প্রায় সাড়ে চার হাজার ইউপির মধ্যে প্রথম ধাপে ভাইরাস সংক্রমণের ঝুঁকি তুলনামূলক কম রয়েছে এমন এলাকায় নির্বাচন করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে কমিশন। পরিস্থিতির উন্নতি হলে ধাপে ধাপে বাকিগুলোয় নির্বাচনের কথা রয়েছে।

এসব নির্বাচন ১১ এপ্রিল হওয়ার কথা ছিল। ভাইরাস সংক্রমণ উদ্বেগজনক হারে বাড়ার কারণে ভোটের ১০ দিন আগে তা স্থগিত করা হয়। পরে ফের ভোটের তারিখ নির্ধারণ করা হয় ২১ জুন।

সর্বশেষ দ্বিতীয় ঢেউয়ে সীমান্ত জেলাগুলোতে সংক্রমণের ঊর্ধ্বগতি বজায় থাকলে ১৬৩ ইউপি ও ৯ পৌরসভার ভোট স্থগিত করা হয়।

অন্যদিকে সোমবার যেসব স্থানে ভোট হচ্ছে, সেখানে সংক্রমণ অপেক্ষাকৃত কম হওয়ায় তা বহাল রাখা হয়।

ফাইল ছবি

ফাইল ছবি

ইসির অতিরিক্ত সচিব  অশোক কুমার দেবনাথ জানান, বরাবরের মত পর্যাপ্ত সংখ্যক আইন শৃঙ্খলাবাহিনীর সদস্য মোতায়েন করা হয়েছে। সুষ্ঠু ভোটের জন্য রিটার্নিং কর্মকর্তা ও স্থানীয় প্রশাসনকে নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে; আইন শঙ্খলা রক্ষায় বিভিন্ন বাহিনীর প্রায় ৪৫ হাজার সদস্য মাঠে রয়েছেন।

ইসির জনসংযোগ পরিচালক যুগ্মসচিব এস এম আসাদুজ্জামান জানান, প্রথম ধাপের ২০৪ ইউপির মধ্যে চেয়ারম্যান পদে বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত হয়েছেন ২৮ জন।

এখন লড়াইয়ে রয়েছেন চেয়ারম্যান পদে ৮৫৯ জন, সাধারণ ওয়ার্ডে সদস্য ৬৯৬০ জন ও সংরক্ষিত সদস্য ওয়ার্ডে ২১৫৪ জন প্রার্থী।

প্রথম ধাপের ইউপি ভোটের তথ্য

এই ধাপের ১৩ জেলার ৪১ উপজেলার ২০৪ ইউপির ভোট হবে সোমবার।

>> এরমধ্যে ব্যালটে ভোট হবে ১৮৪ ইউপিতে, ইভিএমে হবে ২০টিতে।

>> কেন্দ্র: ১৮৩৬টি, ভোটকক্ষ: ১০,২৬০টি।

>> প্রতিদ্বন্দ্বীতায় তিন পদে প্রার্থী প্রায় ১০ হাজার। চেয়ারম্যান: ৮৫৯ জন, সাধারণ ওয়ার্ড সদস্য: ৬৯৬০ জন, সংরক্ষিত সদস্য ওয়ার্ডে: ২১৫৪ জন।

>> বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত হয়েছেন ২৮ জন চেয়ারম্যান।

>> ২০টিতে ইভিএমে ভোট হবে। এগুলো হল: দুমকীর আঙ্গারিয়া, বাউফলের বগা, বরিশালের চরবাড়িয়া, মুলাদীর গাছুয়া, বাবুগঞ্জের বীরশ্রেষ্ট জাহাঙ্গীরনগর, গৌরনদীর বাটাজোড়, বরগুনার ঢলুয়া ও বরগুনা, আমতলীর চাওড়া, বেতাগী উপজেলার বেতাগী, ভান্ডারিয়ার তেলীখালী, কদমতলা, মঠবাড়িয়ার তুষখালী, নাজিরপুরের সেখমাটিয়া, ঝালকাঠির বিনয়কাঠি ও নথুল্লাবাদ, নলছিটির ভৈরবপাশা ও দপদপিয়া, রাজাপুরের শুক্তগড়, শিবপুরের কাদিরপুর।

ভোটগ্রহণ কর্মকর্তা ও আইন শৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্য

>> রিটার্নিং কর্মকর্তা ও সহকারী রিটার্নিং কর্মকর্তার বাইরে প্রিজাইডিং ও সহকারী প্রিজাইডিং কর্মকর্তা নিয়োজিত রয়েছে ১২,২০৭ জন। পোলিং অফিসার ২০,৫২০ জন।

>> আইন শৃঙ্খলাবাহিনীর সদস্য: কেন্দ্রে নিরাপত্তা রক্ষায় নিয়োজিত ৪০,৩৯০ জন।

>> পুলিশের মোবাইল ফোর্স ২০৪টি, স্ট্রাইকিং ফোর্স ৭৪টি; র্যাবের ১২৪টি টিম, বিজিবি ১২৩ প্লাটুন। এসব ফোর্সের মোট সদস্য ৫,০৮৮ জন।

>> নির্বাহী হাকিম ৩৯৩ জন ও বিচারিক হাকিম ৪১ জন।

ফাইল ছবি

ফাইল ছবি

লক্ষ্মীপুর উপনির্বাচন

নৌকা ও লাঙ্গলের লড়াইয়ের এই ভোট অনেকটা নিরুত্তাপ।

এই নির্বাচনের রিটার্নিং অফিসার দুলাল তালুকদার জানান, সুষ্ঠু ভোটের সব ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে। কোনো পক্ষ থেকে কোনো অভিযোগ পাওয়া যায়নি বলেও জানান তিনি।

এই আসনের মোট ভোটার ৪ লাখ ২ হাজার ৯২৩ জন। এরমধ্যে পুরুষ ২ লাখ ৪ হাজার ৪৬০ জন ও নারী ১ লাখ ৯৮ হাজার ৪৬৩ জন।

মোট ১৩৬টি কেন্দ্রে ভোটকক্ষেরে সংখ্যা ৯৭৯ টি।

প্রতিটি সাধারণ ও গুরুত্বপূর্ণ কেন্দ্রে ১৭ থেকে ১৯ জন নিরাপত্তা সদস্য নিয়োজিত থাকছেন।

নির্বাচনকালীন দায়িত্ব রয়েছে ২০টি মোবাইল ফোর্স, ১০টি স্ট্রাইকিং ফোর্স, র্যাবের টিম ১০টি ও ১০ প্লাটুন বিজিবি।

২২ জন নির্বাহী হামিক ও ২ জন বিচারিক হামিক নিয়োজিত রয়েছে।

দুই পৌরসভা

ইসির জনসংযোগ পরিচালক যুগ্মসচিব এস এম আসাদুজ্জামান জানান, দিনাজপুর জেলার সেতাবগঞ্জ ও ঝালকাঠির সদর পৌরসভার হবে ইভিএমে।

>> ঝালকাঠিতে ৩ প্রার্থী: আওয়ামী লীগ প্রার্থী মোহাম্মদ লিয়াকত আলী তালুকদার, স্বতন্ত্র মো.আফজাল হোসেন এবং ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের মো. হাবিবুর রহমান।

>> সেতাবগঞ্জে ৫ প্রার্থী: আওয়ামী লীগের মো. আসলাম, ওয়ার্কার্স পার্টির মো. রশিদুল ইসলাম এবং স্বতন্ত্র প্রার্থী নাজমুন নাহার মুক্তি, নাহিদ বাসার চৌধুরী ও হাবিবুর রহমান দুলাল।